Monday, July 1, 2019

বুক রিভিউঃ কুয়াশিয়াঃ স্পেলমেকারের অনুসন্ধান


লম্বা সময়ের রিডার্স ব্লক কাটিয়ে একটা বই পড়ে শেষ করতে পারলাম । মনে হচ্ছে রিডার্স ব্লকটা কেটে গিয়েছে । কাল রাতে বইটা শেষ করতে পেরেছি । বইটার নাম “কুয়াশিয়া” । লেখক আশরাফুল সুমন । আধুনিক রূপকথার গল্প অর্থ্যাৎ বইটার ধরন ফ্যান্টাসি । বাংলা ভাষায় বাংলাদেশী লেখকদের লেখা ফ্যান্টাসি গল্প আমি এর আগে পড়েছি বলে মনে পড়ে না । ছোট খাটো গল্প পড়া হয়েছে কিন্তু বিশাল সাইজের ফ্যান্টাসি উপন্যাস আমার এই প্রথম । সেই হিসাবে লেখক সাহেবকে অবশ্যই ধন্যবাদ দেওয়া উচিৎ । 


উপন্যাসের কাহিনী সংক্ষেপ টা শুরু অ্যারেন কে নিয়ে । অ্যারেন আস্তে আস্তে বুঝতে পারে তার আশে পাশে সব কিছু ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হচ্ছে এবং এই পরিবর্তন টা সে ছাড়া আর কেউ বুঝতেও পারছে না । নিজেকে এক সময় পাগল ভাবতে শুরু করে সে । ভাবে হয়তো তার মাথা হয়তো খারাপ হতে চলেছে । কেন তার সাথে এমন হচ্ছে এমন জানার আগেই তার জীবনে নেমে আসে অন্য এক বিপদ । তার সব থেকে কাছের মানুষটা তারই ভুলের জন্য হারিয়ে যায় কুয়াশিয়ায় । কুয়াশিয়া জগতটাকে একটা নদীর সাথে তুলনা করা যায় যেটা পৃথিবীর উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে চলেছে । এই জগতে ভয়ংকর সব প্রাণীদের বসবাস । সেখান বিশৃঙ্খলা বেড়ে গেলেই সেটা পৃথিবীর শৃঙ্খলাকে বিনষ্ট করে ।

অ্যারেন সেই কুয়াশিয়ার দিকেই রওয়ানা দিলো তার বাবাকে ফেরৎ নিয়ে আসার জন্য । সঙ্গী হল দুজন এলিস এবং সামারলান । তিন জনের মিলিত চেষ্টায় তার এগিয়ে চলল কুয়াশিয়ার দিকে । এক শক্তিশালী অস্ত্রের খোজে যেটার সাহায্য আবারও তার বাবাকে ফেরৎ আনা যাবে । কিন্তু তারা নিজেও জানতে পারলো না যে এই সবই আগে থেকেই ঠিক করা ছিল । তের বছর আগের করা এক প্রোফেসীকে সত্য করার জন্য এগিয়ে চলেছে তারা । সেই প্রোফেসীটা সত্য হলে, এক প্রাচীন শক্তি আবারও ফিরে আসবে । আবারও পৃথিবীতে আরেকটা মহা যুদ্ধ শুরু হবে । তিন হাজার বছর পূর্বে এক মহাযুদ্ধের ফলে হাজার হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল, সেই রকম আরেকটা মহা যুদ্ধ হতে চলেছে । এখন অ্যারেন এবং তার বন্ধুরা মিলে কি পারবে সেই শক্তিকে ঠেকাতে?
সেটা জানতে হলে বই পড়তে হবে !

বইয়ের ভাল দিক হচ্ছে কাহিনীর এগিয়ে চলা । কাহিনী কখনই ঘুমিয়ে পড়ে নি কিংবা মনে হয় নি আটকে গেছে । লেখকের লেখার হাতও বেশ । যেহেতু সম্পূর্ন ভাবে এটা একটা ফ্যান্টাসি তাই পাঠক যখন বইটা পড়তে যাবে তখন তার কল্পনা শক্তিটা অনেক ভাল হওয়া চাই । তাহলে লেখকের লেখটা মনে পর্দায় ফুটিয়ে তুলতে পারবে এবং তখন বইটা তার কাছে আরও বেশি আকর্ষনীয় মনে হবে । তবে একটা খারাপ দিক হচ্ছে বইয়ের সংলাপ । আমার কাছে বইয়ের সংলাপ বেশ দূর্বল মনে হয়েছে । এতো বড় বইয়ের চরিত্রদের সংলাপ গুলো আরও বেশি স্বাভাবিক এবং বুদ্ধিদীপ্ত হওয়ার দরকার ছিল কিন্তু সেখানে লেখককে আমার খানিকটা ব্যর্থ মনে হয়েছে । কিছু কিছু জায়গাতে সংলাপ গুলো এতোটাই কৃত্রিম মনে হয়েছে সে সেটা লেখার উপর থেকে মনযোগ বিচ্ছিন্ন করে নিয়ে গেছে । তবুও কাহিনীটা আকর্ষনীয় ছিল বলেই আবারও সেই মনযোগ ফিরে এসেছে । এই একটা ব্যাপার বাদ দিলে কুয়াশিয়া চমৎকার একটা বই ।

কি নেই আসলে বইটাতে ! একশান, খানিক রোমান্স, বন্ধুত্ব জাদু ড্রাগন আরও কত কিছু । যারা ফ্যান্টাসি বই পড়তে পছন্দ করেন তারা এই বইটা পড়ে দেখতে পারেন । আমাদের দেশে এই রকম লেখা খুবই কম । আরও লেখা উচিৎ ।


বইয়ের নাম কুয়াশিয়াঃ স্পেলমেকারের অনুসন্ধান
লেখকঃ আশরাফুল সুমন
প্রকাশিত হয়েছে রোদেলা প্রকাশনী থেকে । মোট পৃষ্ঠার সংখ্যা ৪৩২ ।


হ্যাপি রিডিং ।


No comments:

Post a Comment